COMILLA VICTORIANS BLOG

বোলিং আক্রমণ শক্ত করলো কুমিল্লা

বিপিএলের প্লেয়ার্স ড্রাফট থেকে নয়জন ক্রিকেটারকে দলে নিয়েছে ২০১৫ সালের চ্যাম্পিয়ন দল কুমিল্লা ভিক্টোরিয়ান্স। নিজেদের বোলিং আক্রমণ আরো শক্ত করাতেই প্রাধান্য দিয়েছে তামিম ইকবালের দল। তামিম ছাড়াও জস বাটলার, মারলন স্যামুয়েলসদের মতো টি-২০ এর তারকা ব্যাটসম্যানদের সাথে আগেই চুক্তিবদ্ধ হয়েছে কুমিল্লা ভিক্টোরিয়ান্স। প্লেয়ার ড্রাফ্‌টে ব্যাটসম্যানদের চাইতে বোলারদের প্রয়োজনীয়তাটাই ছিল বেশি। ২০১৫ সালের ফাইনালের নায়ক অলোক কাপালিকেও দলে ফিরিয়ে এনেছে কুমিল্লা ভিক্টোরিয়ান্স।বাংলাদেশের ডানহাতি ফাস্ট বোলার আল-আমিন হোসেনকে দলে নিয়েছে কুমিল্লা ভিক্টোরিয়ান্স। আল-আমিন হোসেনের সাথে আছেন তরুণ বাঁহাতি ফাস্ট বোলার মেহেদি হাসান রানা-ও। রান আটকে রাখার পাশাপাশি দলের প্রয়োজনে ব্রেক থ্রু এনে দেওয়ার সামর্থ্য রয়েছে আল-আমিনের। পাকিস্তানের বাঁহাতি ফাস্ট বোলার রুম্মন রইসকেও দলে নিয়েছে কুমিল্লা। পাকিস্তানের হয়ে এখন পর্যন্ত পাঁচটি আন্তর্জাতিক টি-২০ খেলেছেন রুম্মন, পেয়েছেন চারটি উইকেটও

স্পিনার হিসেবে কুমিল্লা ভিক্টোরিয়ান্স দলে ভিড়িয়েছে বাঁহাতি স্পিনার আরাফাত সানিকে। সীমিত ওভারের ক্রিকেটে কার্যকরী ভূমিকা রাখার সামর্থ্য রয়েছে আলোচিত স্পিনারের। গত আসরে তিনি খেলেছিলেন রংপুর রাইডার্সের হয়ে। বল হাতে দারুণ পারফরম্যান্স করেছিল সানি। আছেন এনামুল হকও।

ব্যাটসম্যান হিসেবে অলক কাপালি ও রকিবুল হাসান রয়েছেন কুমিল্লা ভিক্টোরিয়ান্সে। ব্যাটিংয়ে হাল ধরার পাশাপাশি দ্রুত রান তুলতে পারেন কাপালি। তামিম ইকবাল আর মারলন স্যামুয়েলসের সাথে অলোক কাপালিকে নিয়ে ব্যাটিং অর্ডারটাও শক্ত করেছে কুমিল্লা। সাথে ইমরুল কায়েস আর লিটন দাস তো আছেই।

প্লেয়ার্স ড্রাফট থেকে বেছে নেওয়া নয়জন ক্রিকেটারের মধ্যে সাতজন দেশি ও দুইজন বিদেশী ক্রিকেটার। পাকিস্তানের রুম্মন রইস ছাড়াও জিম্বাবুয়ের অলরাউন্ডার সোলোমন মিরেকে দলে নিয়েছে কুমিল্লা ভিক্টোরিয়ান্স। শ্রীলঙ্কার বিপক্ষে জিম্বাবুয়ের ওয়ানডে সিরিজ জয়ে দারুণ ভূমিকা  রেখেছিলেন তিনি।

প্লেয়ার্স ড্রাফট থেকে কুমিল্লা ভিক্টোরিয়ান্সের বাছাই করা ক্রিকেটাররাঃ

দেশীয় ক্রিকেটারঃ আল-আমিন হোসেন, আরাফাত সানি, অলোক কাপালি, মাহেদি হাসান, মেহেদি হাসান রানা, এনামুল হক এবং রকিবুল হাসান।

বিদেশি ক্রিকেটারঃ সোলমন মিরে (জিম্বাবুয়ে), রুম্মন রাইস (পাকিস্তান)।